nirvejal-favicon

নিজস্ব তত্ত্বাবধানে উৎপাদিত শতভাগ খাঁটি খেজুরের গুড়

ফিটকিরি, হাইড্রোজ, টেক্সটাইল রঙ, আটা, চিনি সহ সকল প্রকার ভেজাল মুক্ত

নিজস্ব তত্ত্বাবধানে উৎপাদিত শতভাগ খাঁটি খেজুরের গুড়

আমাদের গুড়ের গল্প

গুড় উৎপাদনে আমাদের সীমাবদ্ধতা আছে। তাই আমরা বলতে পারি না যে – যত চান ততই দিতে পারবো! খেজুর গাছ প্রকৃতির এক অনন্য দান আর এই গাছ যতটুকু রস দেয় সেটা থেকেই আমাদের গুড় উৎপাদন করতে হয়। এর মধ্যে সব গাছের রস দিয়ে গুড় উৎপাদন সম্ভব হয় না। কোয়ালিটি ধরে রাখতে গেলে কিছু গাছের রস আমাদের বাদ দিতে হচ্ছে। এদিকে গাছ থেকে প্রতিদিন রসও সংগ্রহ করা যায় না। ভাল মানের গুড়ের জন্যে চাই ভাল মানের রস যা পেতে তাই গাছকে নিয়মিত বিরতিতে বিশ্রাম দিতে হয়।

 

গাছিদের সাথে কাজ করতে গিয়ে আমরা জেনেছি : রসের মান খারাপ হলে, কম রসে বেশি গুড় বানাতে হলে, গুড়ে চিনি ব্যবহার করতেই হয়। গুড় উৎপাদন প্রক্রিয়াতে রস জ্বাল হবার সময় অনেকবার ছেঁকে ময়লা, ফেনা ইত্যাদি তুলে ফেলতে হয় এবং এটা বেশ পরিশ্রম ও সময় সাপেক্ষ কাজ। ঢাকার বাজারে একটু পরিচ্ছন্ন, চকচকে গুড়ের চাহিদা আছে বলে গুড় উৎপাদনকারীরা সময় ও পরিশ্রম কমাতে ছাঁকাছাঁকির প্রক্রিয়াতে না গিয়ে গুড়ে ফিটকিরি ও হাইড্রোজ ব্যবহার করে। এতে করে রস থেকে এক-দুইবার ছেঁকে ফেনা তুললেই চলছে পাশাপাশি গুড়ও চকচকে হয়ে যাচ্ছে। পত্রপত্রিকা ও সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যানে ভোক্তাগন জানেন যে, খাঁটি গুড়ের রং হবে কালচে লাল। অসাধু ভেজালকারীরা এখানেও কারসাজি করছে। পূর্বের সব ভেজাল প্রক্রিয়া বহাল রেখে গুড়ে কালচে লাল রং আনতে মেশাচ্ছে টেক্সটাইল রং! যা কিনা স্বাস্থ্যের জন্যে মারাত্মক ক্ষতিকর। কোথাও কোথাও গুড়ে সেদ্ধ আলু, আটা ইত্যাদিও মেশায়। আমরা আরো জেনেছি, শীতের মাঝামাঝিতে রস ও গুড় ভাল হয়। শুরুর দিকে রস পাতলা ও পরিমানে কম হয় বলে তাতে চিনি মেশানো ছাড়া গুড় বানানো যায় না।

 

এতসব তথ্য উপাত্তের উপর ভিত্তি করেই আমরা একটু দেরিতে গুড় উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু করেছি। কেননা গতানুগতিক ধারায় শুধুমাত্র পণ্য উৎপাদন ও বিক্রি আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। নিরাপদ খাদ্যের সংকটময় এই সময়ে সচেতন ভোক্তা পরিবারের জন্যে (আইটেম/পরিমানে কম হলেও) নিরাপদ, বিশুদ্ধ ও প্রাকৃতিক খাদ্যপণ্য উৎপাদন, উৎসায়ন ও বিপননের মাধ্যমে ভোক্তা সন্তুষ্টি অর্জন করাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। আর তা বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে এবার উত্তরবঙ্গের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে নির্ভেজাল টিমের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় এবং প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ফিটকিরি, হাইড্রোজ, টেক্সটাইল রং, আটা, চিনি সহ সকল প্রকার ভেজালমুক্ত, শতভাগ খাঁটি ও প্রাকৃতিক “নির্ভেজাল প্রিমিয়াম খেজুর গুড়” তৈরী করা হচ্ছে।

এই শীতে পিঠা-পায়েসের আয়োজনে নির্ভেজাল প্রিমিয়াম খেজুরের গুড় ব্যবহারে আপনি পাবেন আদি ও আসল খেজুর গুড়ের প্রকৃত স্বাদ এবং ঘ্রাণ যা আপনার মন ও রসনাকে বিশুদ্ধতার আবেশে পরিতৃপ্ত করবে বলেই আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস।

খুঁজুন

কার্ট

No products in the cart.